ঘুমের মধ্যেই ‘মুক্তি’র ‘জানালা’ দিয়ে ‘চরাচরে’ বিলীন বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত

ঘুমের মধ্যেই ‘মুক্তি’র ‘জানালা’ দিয়ে ‘চরাচরে’ বিলীন বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত

বৃহস্পতির সকালে ঘুমের মধ্যেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পরলেন কবি-চলচিত্রকার বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত। কিছু দিন ধরেই কিডনির অসুখে ভুগছিলেন। চলছিল ডায়ালিসিস। বৃহস্পতিবার সকালে আর তাঁর সাড়া মেলে নি।

বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত ১৯৪৪ সালে ১১ ফেব্রুয়ারি পুরুলিয়ায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাঁর বাবা রেলে চাকরি করতেন। ১২ বছরে হাওড়ার স্কুলজীবন শুরু করেন। তারপর অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেছিলেন স্কটিশ চার্চ কলেজ এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। অর্থনীতির অধ্যাপক হিসেবেই কর্মজীবন শুরু করেছিলেন। কিন্তু স্বভাবকবি বুদ্ধদেব সেলুলয়েডে পদ্য রচনায় মাতলেন পরিণত বয়সে।

বুদ্ধদেব পরিচালিত পাঁচটি ছবি বাঘ বাহাদুর, চরাচর, লাল দরজা, মন্দ মেয়ের উপাখ্যান ও কালপুরুষ সেরা চলচিত্রের জাতীয় পুরস্কারজয়ী হয়। স্বয়ং পরিচালক উত্তরা ও স্বপ্নের দিন’র জন্য দু’বার শ্রেষ্ঠ পরিচালকের জাতীয় পুস্কার পেয়েছেন। তাঁর টুপিতে জুড়েছে অসংখ্য আন্তর্জাতিক সম্মানও। মাদ্রিদ চলচিত্র উৎসবের জীবনকৃতি সম্মান এর মধ্যে অন্যতম। তবে আক্ষেপ পরিচালকের শেষ দিকের কিছু কাজ প্রেক্ষাগৃের মুখ দেখে নি। আনওয়ার কা আজব কিস্সা ওটিটি প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে কিছু দিন আগে।

পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত’র প্রয়ানে গভীর শোক ব্যক্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকবার্তা পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.