নুসরতের সহবাস: নিখিলের প্রত্যাঘাত ও রাজনৈতিক জলঘোলা

নুসরতের সহবাস: নিখিলের প্রত্যাঘাত ও রাজনৈতিক জলঘোলা

বসিরহাটের সাংসদ নুসরত জাহানের ব্যক্তিগত বৈবাহিক জটিলতা এখন অন্য মাত্রায় পৌঁছে গেছে। রাজনৈতিক বিতর্ক থেকে সোশ্যালল মিডিয়ার মুচমুচে গসিপে এখন একটাই প্রসঙ্গ বিয়ে না সহবাস। এই বিতর্কের মাঝেই বৃহস্পতিবার ব্যবসায়ী নিখিল জৈনও এক বিবৃতি পেশ করেছেন। সেখানে তিনি নুসরত তাঁর নাম না নিয়ে যে সব অভিযোগ এনেছেন সেগুলির জবাব দিয়েছেন। নিখিল বিবৃতিতে মেনে নিয়েছেন তুরস্কের বিয়ে ভারতে বৈধ নয় এবং তিনি নুসরতকে ভারতেও স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্টে রেজিস্ট্রি করার কথা বলেন, কিন্তু নুসরত এড়িয়ে যান বলে নিখিল দাবি করেছেন। নুসরতের হোম লোন মেটাতে টাকা তুলেছিলেন বলেও নিখিল জানিয়েছেন এবং তাঁর পরিবার নুসরতের কাছে বেশ কিছু টাকা পায় বলেও তিনি জানান। বিবৃতিতে নিখিল মেনে নিয়েছেন গত নভেম্বর থেকে তাঁরা আলাদা থাকছেন।

অন্যদিকে নুসরাতের সহবাস তত্ত্ব নিয়ে শুরু হয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক তর্জা। বৃহস্পতিবার তৃণমূল সাংসদ নুসরাতকে কটাক্ষ করে সোশাল মিডিয়ায় নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে বিজেপি নেতা অমিত মালব্য একটি তীর্যক পোস্ট করেন। মন্তব্য করেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁও। সৌমিত্রের বক্তব্য দাম্পত্যে বিচ্ছেদ আসতেই পারে কিন্তু বিবাহকে অস্বীকার করা নুসরতের উচিত হয়নি। এরপর আসরে অবতীর্ণ হন নুসরতের দলের সতীর্থ তথা মুখপাত্র কুনাল ঘোষ। তিনি বলেন, “ব্যাক্তিগত জীবন থেকে রাজনীতি দূরে রাখুন। নুসরাত জাহান প্রসঙ্গটি ব্যক্তিগত। এর সঙ্গে রাজনীতি বা দলের কোনাে সম্পর্ক নেই। বিজেপির মালব্য এসব নিয়ে টুইট না করাই ভালাে। তর্ক শুরু হলে বিজেপির পক্ষে ভালাে হবে না। তৃণমূল মানুষের কাজ নিয়ে ব্যস্ত।”

সাধারণ মানুষ ও নেট-নাগরিকরা কিন্তু সহবাস তত্ত্ব নিয়ে ভার্চুয়াল চায়ের কাপে বিতর্কের তুফান ডেকেছেন। এক পক্ষ অভিনেত্রী-সাংসদের পক্ষ নিয়ে ব্যক্তিগত পরিসরে না ঢোকার পরামর্শ দিয়েছেন। কেউবা মীম বানিয়েছেন। কেউ সাংসদের নির্বাচনে দাখিল করা ঘোষণাপত্র ও সংসদে দেওয়া তথ্যের স্ক্রিনশট দিয়ে নতুন বিতর্ক উস্কে দিয়েছেন। সব মিলিয়ে পছন্দ হোক বা না হোক বিয়ে না সহবাস এই বিতর্ক এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.